সামনে পূজা বডি ফিটনেস এর সহজ উপায়

আমরা বাঙালিরা এখনও পুজো নিয়ে অনেক স্বপ্ন, অনেক আশা এবং অনেক আনন্দের স্বাদ উপলব্ধি করি। এর মধ্যে পোশাক-আশাক এবং নিজের সৌন্দর্য্য়ায়নের দিকটা অনেকটাই জায়গা জুড়ে থাকে।

পোশাক-আশাকের সৌন্দর্য্যায়ন একটা পুরো মাত্রা পায় তখনই যখন আপনি নিজেকে ফিট এবং তরতাজা মনে করছেন। এই ব্য়াপারে আপনার ‘ড্রিম কাম ট্রু’ করতে হলে নিজের শরীরের দিকে কিছুটা লক্ষ্য রাখতেই হবে। মনে রাখবেন, কিছু পেতে হলে অবশ্যই কিছু দিতে হয়— এক্ষেত্রে একটু সুপরিকল্পিত ডায়েট আর অল্প হলেও যে কোনও ধরনের শরীরচর্চা।

১) প্রথমেই জানতে হবে আপনার কতটা মেদ কমানো বা রোগা হওয়া উচিত।  ধরা যাক আপনার উচ্চতা ১৬০ সেন্টিমিটার আর দেহের ওজন ৭০ কেজি। এক্ষেত্রে আপনাকে মোটামুটি ৮ থেকে ১০ কেজি কমাতে হবে। ধরা যাক, আর একজনের উচ্চতা ১৭০ সেন্টিমিটার আর ওজন ৮৫ কেজি। সেক্ষেত্রে মোটামুটি ১৩ কেজি থেকে ১৫ কেজি কমানো দরকার। সেন্টিমিটারের শেষ দুটো ঘরের হিসেব অনুযায়ী, মানুষ অনুসারে দুই থেকে পাঁচ কেজির মধ্যে রাখা উচিত।

ধরা যাক, কারও উচ্চতা ১৫০ সেন্টিমিটার। শেষ দুটো অর্থাৎ ৫০ ধরে হিসেব করলে মোটামুটি ৫০ কেজি থেকে ৫৫ কেজির মধ্য়ে থাকলে ভাল হয়। এর পরে অবস্থা অনুযায়ী, দু’তিন কেজি কমানো যেতেই পারে।

এটা একটা মোটামুটি দেহের ওজন কমানোর হিসেব। এর মধ্য়ে অবশ্য়ই একটা বয়সের ব্য়াপার রয়েছে। একজন ৬০ বছরের মহিলা কিংবা পুরুষের সব সময় ‘আইডিয়াল’ বডিওয়েটে যাওয়া সম্ভব নয়। অনেক বছর ধরে শরীরচর্চা এবং ডায়েট যাঁরা করেন তাঁদের ব্য়াপার অবশ্যই আলাদা।

এইভাবেই আপনারা আপনাদের বডিওয়েট কতটা কমাবেন হিসেব কষে আমি যে ডায়েট বলছি সেইভাবে প্ল্যান করে ফেলুন। আমি ব্রেকফাস্ট থেকে ডিনার পর্যন্ত ডায়েট অপশন রাখব। বডিওয়েট কতটা কমাবেন তার উপর আপনারা অপশন চয়েস করবেন। এই ডায়েটটা পুরোপুরি কর্মরত মহিলা ও পুরুষের জন্য—

১) ঘুম থেকে উঠেই টার্গেট রাখবেন এক লিটার ইষদুষ্ণ জল— অর্থাৎ ৪ গ্লাস। এই পদ্ধতি অলৌকিক কাজ করে।

২) ৪৫ মিনিট পরে ব্রেকফাস্ট— ক) পোহা খ) উপমা গ) ডালিয়া ঘ) প্লেন ওটস খিচুড়ির মতো ঙ) কর্নফ্লেকস-দই অথবা দুধ

৩) অফিসে এক কাপ চিনি ছাড়া চা এবং একটা সুগারফ্রি বিস্কুট।

৪) লাঞ্চে একদিন দুটো রুটি কিংবা এক কাপ ভাত। সঙ্গে সবজি ও মাছ। অল্টারনেট দিনে আপেল, পেয়ারা, শশা, পেঁপে ও তার সঙ্গে টক দই।

৫) লাঞ্চের দু’ঘণ্টা পর এক কাপ চিনিছাড়া চা এবং একটা বিস্কুট।

৬) বিকেলের স্ন্যাকসে ক) স্প্রাউটস (ছোলার চাট) ও সঙ্গে দুটো এগ হোয়াইট খ) মুড়ি-শশা গ) শুকনো খোলায় ভাজা চিঁড়ে।

৭) বাড়ি ফিরে খিদে পেলে নোনতা সুজি, চিঁড়ের পোলাও কিংবা স্ন্যাকসে উল্লিখিত যে কোনও একটি আইটেম।

৮) ডিনারে দুটো রুটি, সবজি, ডাল, মাছ কিংবা মাংস। অল্টারনেট দিনে সব রকম ভেজিটেবিল সহযোগে চিকেন স্যুপ, সঙ্গে স্যালাড কিংবা রায়তা।

যদি দুপুরে লাঞ্চে ভাত খাওয়া হয়, তাহলে সেদিন ডিনারে স্যুপ আর যদি ফল দিয়ে লাঞ্চ করেন তবে সেদিন ডিনারে রুটি।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *