প্লাস্টিকের কাপে গরম চা?বলুন না…

প্রচন্ড কাজের চাপের মধ্যে একটু বিরতি দেওয়ার জন্য চা বা কফির কোন বিকল্প হয় না।আর অফিসের সামনে বা বাড়ির পাশে চা দোকান থেকে চা খাওয়া মানে প্লাস্টিকের কাপে চা খাওয়া।বর্তমানে মাটির ভাঁড়ের থেকে এর মূল্য অনেকটাই কম।আর সহজে পাওয়া ও যায়।তাই প্রায় সকল চা দোকানদারাই এই প্লাস্টিকের কাপ ব্যবহার করে।

কিন্তু চিকিৎসকদের মতে এটা একদম ঠিক না।এগুলি ডেকে আনতে পারে বিভিন্ন কঠিন ও জটিল রোগ।গবেষকদের মতে প্লাস্টিকের মধ্যে থাকা বিস্ফেনোল এ নামক টক্সিক সবথেকে বেশি ক্ষতিকারক।গরম চা যখন এই প্লাস্টিকে কাপের সংস্পর্শে আসে তখন এই রাসায়নিক চায়ের সঙ্গে মিশে যায়।আর এই রাসায়নিকটি যদি নিয়মিত কোন মহিলার শরীরে ঢোকে তাহলে ইস্ট্রোজেন হরমোনের কাজের স্বাভাবিকতা বিঘ্নিত ঘটায়।এবং পুরুষদের ক্ষেত্রে শুক্রাণু কমে যায়,হার্ড, কিডনি, লিভার এমনকি ফুসফুসে ও মারাত্মক ক্ষতি হয়।এবং ক্যান্সার পর্যন্ত হতে পারে।গবেষণায় জানা গেছে প্লাস্টিক বানাতে যে উপাদান ব্যবহার করা হয় সেগুলি যদি দীর্ঘদিন শরীরে প্রবেশ করে তাহলে শরীরে ক্লান্তি মস্তিষ্কের ক্ষমতা কমে যাওয়া সহ বিভিন্ন রোগ দেখা দেয়।সাধারণত প্লাস্টিকের পাত্র বানানোর সময় তা নরম রাখার জন্য থ্যালেট ব্যবহার করা হয়।যা মানবদেহের বিষ এর কাজ করে।এছাড়াও এর থেকে ডায়াবেটিক শ্বাসকষ্ট ক্যান্সার প্রভৃতি রোগ মানব দেহে বাসা বাঁধে।

সম্প্রতি একটি আন্তর্জাতিক গবেষণায় দেখা গেছে ভারতে ক্যান্সারে আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে।বর্তমানে এই রোগে আক্রান্তের সংখ্যা অনুযায়ী ভারতের তৃতীয় স্থান।তাই নিজেকে সুস্থ রাখতে যত বেশি সম্ভব প্লাস্টিকের জিনিস এড়িয়ে চলুন।।

    [যদি প্রতিবেদনটি আপনাদের ভালো লেগে থাকে তাহলে শেয়ার কমেন্ট ও লাইক করতে ভুলবেন না।]

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *