আমাকে মেরে ফেলতে পারে, আশঙ্কা প্রকাশ করেই অস্বাভাবিক মৃত্যু করোনা গবেষকের

তিনি আশঙ্কা প্রকাশ করেছিলেন, কেউ বা কারা তাঁকে মেরে ফেলতে পারে। আশঙ্কাই সত্যি হল। সত্যিই তাঁকে মেরে ফেলা হল! মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এক করোনা গবেষকের অস্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছে। খুন নাকি আত্মহত্যা? পিটার্সবার্গ ইউনিভার্সিটির গবেষক ছিলেন তিনি। করোনাভাইরাসের প্রকৃতি এবং সংক্রমণের ব্যাপারে অনেক তথ্য উদঘাটন করেছিলেন বলে দাবি করেছিলেন এই গবেষক। গবেষণায় সাফল্যের পরই তিনি আশঙ্কা প্রকাশ করেছিলেন, কেউ বা কারা তাঁকে মেরে ফেলতে পারে যে কোনওদিন! শেষমেশ তাই হল ৩৭ বছর বয়সী গবেষক বিং লিউ—এর সঙ্গে।

রোজ টাউনশিপে নিজের বাড়িতেই মৃত অবস্থায় পাওয়া যায় বিংকে। তাঁর শরীরে গুলির চিহ্ন রয়েছে। বিংয়ের গাড়ির মধ্যে আরেকজনের মৃতদেহ পাওয়া গিয়েছে। সেই ব্যক্তির বয়স ৪৬ বছর। তাঁর নাম গাউ গু। অনেকে মনে করছেন বিংকে গুলি করে মেরে ফেলার পর গাউ আত্মহত্যা করে নেয়। পুলিস অবশ্য জানিয়েছে, বিংকে পরিকল্পিতভাবে খুন করা হয়েছে। তবে এখনই এই ব্যাপারে বিস্তারিত কিছু জানাতে চায়নি পুলিস। 

পিটার্সবার্গ ইউনিভার্সিটির মেডিসিন বিভাগে শিক্ষকতা করতেন বিং। করোনাভাইরাসের প্রকৃতি ও সংক্রমণের ধরণ নিয়ে গবেষণা করছিলেন তিনি। মারণ ভাইরাসের আচরণ সম্পর্কে অনেক তথ্য উদঘাটন করছিলেন তিনি। তবে গবেষণার কাজ শেষ করতে পারেননি। পিটার্সবার্গ ইউনিভার্সিটি—র তরফে জানানো হয়েছে, বিংয়ের অসমাপ্ত কাজ শেষ করার জন্য যাবতীয় চেষ্টা করা হবে। বিং যে বিভাগে কাজ করতেন সেখানে গবেষণার কাজ শুরু করার তোড়জোর চলছে। 

আরও পড়ুন: রক্ত পাতলা রাখার ওষুধেই কি করোনাকে হারানো সম্ভব?

[যদি প্রতিবেদনটি আপনাদের ভালো লেগে থাকে তাহলে শেয়ার কমেন্ট ও লাইক করতে ভুলবেন না।]

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *