করোনা আবহে অ্যালকোহলযুক্ত হ্যান্ড স্যানিটাইজার নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা কেন্দ্রের

অ্যালকোহলযুক্ত হ্যান্ড স্যানিটাইজার এক্সপোর্ট বন্ধ করে দিল ভারত সরকার। দেশে এখন অ্যালকোহলযুক্ত হল্যান্ড স্যানিটাইজারের চাহিদা প্রচুর, তার জেরেই এই সিদ্ধান্ত।
ফরেন ট্রেড (ডেভলপমেন্ট ও রেগুলেশন) ১৯৯২ অ্যাক্ট অনুযায়ী, এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। শুধু অ্যালকোহলযুক্ত হ্যান্ড স্যানিটাইজারই নয়, তা বানাতে যে সমস্ত উপকরণ লাগে, তাও রফতানি বন্ধের নির্দেশ দিয়েছে কেন্দ্র।

করোনাভাইরাস থেকে বাঁচতে আগাম সতর্কতা আর পরিচ্ছন্নতাই অন্যতম উপায়। আর সে জন্যই বিশেষজ্ঞরা বার বার ভাল করে সাবান দিয়ে হাত, মুখ ধুতে বলছেন। বাইরে বেরলে নাক, মুখ মাস্কে ঢাকতে বলছেন। যেখানে হাতের কাছে জল নেই সে ক্ষেত্রে হ্যান্ড স্যানিটাইজার দিয়ে হাত ভাল করে জীবানু মুক্ত করার পরামর্শ দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। আর এই জন্যই সাম্প্রতিক কালে এক লাফে অনেকটাই বেড়েছে হ্যান্ড স্যানিটাইজারের ব্যবহার।

তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যে কোনও হ্যান্ড স্যানিটাইজারে কাজ হবে না। করোনা থেকে বাঁচতে ব্যবহার করতে হবে এমন সব হ্যান্ড স্যানিটাইজার যেগুলিতে অ্যালকোহলের মাত্রা বেশি থাকে। বিশেষজ্ঞদের মতে, যে সব হ্যান্ড স্যানিটাইজারে ৬০ থেকে ৯৫ শতাংশ পর্যন্ত অ্যালকোহল থাকে শুধুমাত্র সেগুলিই এই পরিস্থিতিতে আমাদের হাত জীবানু মুক্ত করতে সক্ষম। সংবাদ মাধ্যম ও বিভিন্ন গণ মাধ্যমের দৌলতে এ খবরও দেশের অধিকাংশ নাগরিক জেনে গিয়েছেন এতদিনে।
ফলে বাড়ছে চাহিদা। বাজারে প্রায় অমিল হ্যান্ড স্যানিটাইজার। অনলাইনে অর্ডার দিয়েও তা পাওয়া যাচ্ছে না। আবার এই নিয়ে শুরু হয়ে গিয়েছে কালোবাজারিও। এই অবস্থায় কেন্দ্রের এই পদক্ষেপ গুরুত্বপূর্ণ বলেই মনে করা হচ্ছে।

আরও পড়ুন: জীবাণু মারতে স্যানিটাইজার কেন এত কার্যকর? কী জানাচ্ছে গবেষণা?

[যদি প্রতিবেদনটি আপনাদের ভালো লেগে থাকে তাহলে শেয়ার কমেন্ট ও লাইক করতে ভুলবেন না।]

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *