ধর্ম নিয়ে টানাটানি চিনের! যীশুর ছবি সরিয়ে জিন পিংয়ের ছবি টাঙানোর নির্দেশ খ্রীষ্টানদের

বাঁচালে প্রেসিডেন্ট জিন পিং বাঁচাবেন। প্রভু যীশু কিন্তু বাঁচাবে না। তাই যীশুর ছবি সরিয়ে প্রেসিডেন্ট-এর ছবি টাঙাতে হবে। দেশে বসবাসকারী খ্রীষ্ট ধর্মাবলম্বীদের এমনই নির্দেশ দিয়েছে চিনের প্রশাসন। চিনা সরকারের এমন নির্দেশের বিরুদ্ধে গর্জে উঠেছেন সারা বিশ্বে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা খ্রীষ্টানরা। সংখ্যালঘুদের প্রতি চিন সরকারের অত্যাচার, অবিচার এই প্রথম নয়। এর আগেও খ্রীষ্টানদের প্রভু যীশুরু ছবি সরিয়ে রাষ্ট্রনেতাদের ছবি টাঙানোর নির্দেশ দিয়েছিল চিন সরকার। তা নিয়ে বিস্তর প্রতিবাদ হয়। চিনের মোট জনসংখ্যার দশ শতাংশ খ্রীষ্টান। তাদের বেশিরভাগ চিনে দারিদ্র সীমার নিচে বসবাস করেন।

আনহুই, জিয়াংসু, হুবেই ও ঝেজিয়াং প্রদেশের গির্জাগুলোতে রাখা ক্রশ নামিয়ে নষ্ট করে ফেলার নির্দেশ দিয়েছে প্রশাসনিক কর্তারা। এমনকী ওইসব প্রদেশে কারও বাড়িতেও যীশুর ছবি না রাখার নির্দেশ জারি করা হয়েছে। তার বদলে প্রেসিডেন্ট জিন পিং ও চেয়ারম্যান মাও-এর ছবি টাঙানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ। চিনের শাংসি প্রদেশের খ্রীষ্টান ধর্মাবলম্বীদের বাড়ি থেকে যীশুর ছবি সরিয়ে ফেলার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ওইসব প্রদেশে খ্রীষ্টানরা একজোট হয়ে চিন সরকারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ শুরু করেছেন। গত শনিবার ও রবিবার আনহুই প্রদেশের একাধিক গীর্জার ক্রশ ভেঙে ফেলা হয়েছে বলে জানা যাচ্ছে। রেডিও ফ্রি এশিয়া জানিয়েছে, গত এক সপ্তাহ ধরে বিভিন্ন প্রদেশে খ্রীষ্টানদের এমন নির্দেশ দিয়েছে প্রশাসন।


সংখ্যালঘুদের উপর প্রশাসনের এমন অত্যাচারের নিন্দা করেছেন চিনের বহু মানুষ। এর আগে সংখ্যালঘু উইঘুর মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষদের প্রতি চিন সরকারের অত্যাচারের অভিযোগ উঠেছিল। শুধুমাত্র ধর্মীয় বিশ্বাসের কারণে উইঘুর মুসলিমদের আটক করে রেখেছিল চিন সরকার।  এবার চিন সরকার জানিয়েছে, যে সব খ্রীষ্টানরা প্রশাসনের থেকে সহায়তা নেন তারা যীশুর ছবি বাড়িতে টাঙিয়ে রাখতে পারবে না।  

আরও পড়ুন: উঠে এল নতুন তথ্য, অনুরাগ কাশ্যপের অফারও দুবার ফিরিয়ে দিয়েছিলেন সুশান্ত

[যদি প্রতিবেদনটি আপনাদের ভালো লেগে থাকে তাহলে শেয়ার কমেন্ট ও লাইক করতে ভুলবেন না।]

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *