‘যত দিন যাচ্ছে আমার রাগ বাড়ছে’, করোনা নিয়ে ফের চিনকেই তোপ ট্রাম্পের

দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা প্রতিদিন যত বাড়ছে, ততই চিনের উপর রাগ বাড়ছে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের। মঙ্গলবার মার্কিন মুলুকে নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় ৪৭ হাজার মানুষ। কোভিড-১৯-এ আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় প্রাণ হারিয়েছেন ১ হাজার ১১৯ জন। তাতেই নতুন করে চিনের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন ট্রাম্প। তাঁর বক্তব্য, অতিমারির জেরে গোটা বিশ্বে যে ভয়াবহ পরিস্থিতি দেখা দিয়েছে, আমেরিকার যে ক্ষতি হয়েছে, তার জন্য চিনের প্রতি তাঁর রাগ আরও বাড়ছে।

যে হারে দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে চলেছে, তাতে পরিস্থিতি তাঁদের নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গিয়েছে বলে মঙ্গলবারই আশঙ্কার প্রকাশ করেন মার্কিন স্বাস্থ্য আধিকারিকদের একাংশ। তার কিছু ক্ষণ পরই টুইটারে চিনের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দেন ট্রাম্প। তিনি লেখেন, ‘‘বিশ্ব জুড়ে অতিমারির যে ভয়াবহ চেহারা দেখতে পাচ্ছি, এর প্রভাবে আমেরিকার যে পরিমাণ ক্ষতি হয়েছে, তাতে যত দিন যাচ্ছে চিনের প্রতি আমার রাগ তত বাড়ছে।’’

আরও পড়ুন:এবার ব্যবসার জন্য ঋণ দেবে Google! পাওয়া যাবে Google Pay-র মাধ্যমে

গত পাঁচ মাসেরও বেশি সময় ধরে নোভেল করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। কিন্তু পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসা তো দূর, বরং যত দিন যাচ্ছে পরিস্থিতি ততই জটিল হচ্ছে সেখানে। ক্যালিফোর্নিয়া, টেক্সাস এবং অ্যারিজোনা এই মুহূর্তে সে দেশে অতিমারির কেন্দ্রস্থলে পরিণত হয়েছে। সেখানে হাসপাতালে রোগীদের জন্য পর্যাপ্ত বেডের জোগানও দেওয়া যাচ্ছে না। তাতে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গিয়েছে বলে গতকালই জানান সে দেশের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব অ্যালার্জি অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিসেস-এর প্রধান অ্যান্টনি ফসি।

অ্যানটিন ফসি বলেন, ‘‘পরিস্থিতি যে নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গিয়েছে, সে ব্যাপারে কোনও সন্দেহ নেই। আমার আশঙ্কা, পরিস্থিতির অবনতি হতে পারে। শুধুমাত্র যেখানে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে, সেখানেই নজর দিলে চলবে না। এতে গোটা দেশেরই বিপদ।’’ ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে শক্ত হাতে লাগাম না ধরলে খুব শীঘ্র প্রতিদিন ১ লক্ষ করে নয়া সংক্রমণের ঘটনা সামনে আসতে পারে বলেও সতর্ক করেন তিনি। আগামী বছরের আগে করোনার প্রতিষেধক হাতে পাওয়া সম্ভব নয় বলেও জানান ফসি।

তবে এই পরিস্থিতির জন্য চিনকে দায়ী করা ঠিক নয় বলে মত মার্কিন বিশেষজ্ঞদের একাংশের। তাঁদের মতে, হাতে যথেষ্ট সময় পাওয়া সত্ত্বেও পরিস্থিতি সামাল দিতে ব্যর্থ হয়েছে ট্রাম্প সরকার। সময় থাকতে এ ব্যাপারে পদক্ষেপ করলে, আজ পরিস্থিতি এতটা ভয়াবহ হত না। নিজেদের ব্যর্থতা ঢাকতে ট্রাম্প প্রশাসন অতিমারি নিয়ে রাজনীতি করছে বলে অভিযোগ তুলেছে বেজিংও।

আরও পড়ুন:চিনা অ্যাপ টিকটককে বিদায় দিয়ে দুই তারকা সাংসদ মিমি-নুসরত কী বললেন?

[যদি প্রতিবেদনটি আপনাদের ভালো লেগে থাকে তাহলে শেয়ার কমেন্ট ও লাইক করতে ভুলবেন না।]

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *